Blog Details

বরগুনায় পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে স্ত্রীর নির্যাতন মামলা

লোকবেতার ডেস্ক :

পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আপস করে যৌতুক মামলায় জামিনে গিয়ে আবারো যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে নির্যাতন করার অভিযোগে বরগুনা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেছেন স্ত্রী।

সোমবার ওই ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. হাফিজুর রহমান মামলাটি গ্রহণ করে তদন্তের জন্য বরগুনা মহিলা সংস্থাকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলার আসামিরা হলেন- বরগুনা সদর উপজেলার আন্দার মানিক গ্রামের ইউনুস হাওলাদারের ছেলে মনিরুল ইসলাম, মনিরুলের বাবা ইউনুস হাওলাদার, মা রাশেদা হেনা ও বোন নাজমা আক্তার। মনিরুল ইসলাম পুলিশের উপপরিদর্শক হলেও বর্তমানে র‌্যাবে কর্মরত আছেন।

জানা যায়, একই গ্রামের মামলার বাদী আসমা আক্তার সোমবার ওই ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ করেন। মনিরুল ইসলাম আসমার কাছে ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। আসমা বরগুনার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গত বছরের ২৫ নভেম্বর একটি মামলা করেন। ওই মামলায় মনিরুল ইসলাম ৪ জানুয়ারি স্ত্রীর সঙ্গে আপস করবে মর্মে জামিনে মুক্তি পান।

আদালত থেকে স্ত্রীকে মনিরুল ইসলাম তার বাড়িতে নিয়ে দুই দিন পরে পুলিশের চাকরির প্রমোশনের জন্য ৬ জানুয়ারি ফের ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। আসমা যৌতুক দিতে অস্বীকার করলে আসামিরা উত্তেজিত হয়ে আসমাকে বেধড়ক মারধর করে রক্তাক্ত জখম করে।

আসমা তার ভাই মনিরকে সংবাদ দিলে আসমাকে মনিরুল ইসলামের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা করায়।

আসমা বলেন, আমার স্বামী পুলিশের দারোগা। এখন র‌্যাবে আছেন। ক্ষমতার জোরে বারবার যৌতুক চেয়ে আমাকে নির্যাতন করেন। এখন নাকি ওসি হবে। টাকার দরকার। এ কারণে ৫ লাখ টাকা যৌতুক চান। আপসের কথা বলে কোর্ট থেকে নিয়ে আবার যৌতুকের দাবিতে নির্যাতন করেছে। আমার ৬ বছরের একটি পুত্রসন্তান নিয়ে বাবার বাড়িতে আছি।

পুলিশ কর্মকর্তা মনিরুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার ফোন বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা যায়নি। মনিরুল ইসলামের বাবা ইউনুস হাওলাদার বলেন, আমার ছেলের বউ মিথ্যা মামলা করেছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this:

developed by:Md Nasir