Blog Details

মাছের ঘেরে লবন পানি উঠাতে গিয়ে ৩০ একর জমির বোরো ফসলের সর্বনাশ

মাছের ঘেরে লবন পানি উঠাতে গিয়ে ৩০ একর জমির বোরো ফসলের সর্বনাশ

জাকির হোসেন, আমতলী : বরগুনার তালতলীতে স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে মাছের ঘেরে লবন পানি উঠাতে গিয়ে কৃষকের ৩০ একর বোরো ফসলের সর্বনাস করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ক্ষেতের ফসল ঝলসে গেছে। ফসল ফলার আর কোন সম্ভাবনা নেই। তালতলী উপজেলার সোনাকাটা ইউনিয়নের সকিনা ও নিদ্রার চর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

তালতলী উপজেলার সোনাকাটা ইউনিয়নের সকিনা ও নিদ্রার চর এলাকার ২৭ জন কৃষক এনজিও থেকে ঋণ ও ধারদেনা করে ৩০ একর জমিতে বোরো ধানের চাষ করেন। ধানের ফলন ভাল হলেও স্থানীয় প্রভাবশালী মালেক আকন ৪ এপ্রিল অমাবস্যায় আমখোলা খালের স্লুইজসগেট খুলে দিয়ে তার চিংড়ি ঘেড়ে সাগরের লবন পানি উঠায়। এ সময় জোয়ারে লবন পানিতে কৃষকের রোপন করা বোরো ক্ষেত তলিয়ে যায়। বোরোক্ষেতে লবন পানি প্রবেশের এক সপ্তাহের মধ্যে কৃষকদের বোরো ধানের গাছ শুকিয়ে ঝলসে গেছে। ক্ষেত দেখলে মনে হবে আগুনের কারনে ক্ষেত পুড়ে গেছে। ক্ষেতের এ অবস্থা দেখে কৃষকরা এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মনির আকন বলেন, মুই এনজিওডে গোনে লোন নিয়া ২ একর বোরো ধানের লাগাইছি। মালেক আকন হ্যার ঘেড়ে নুন পানি উডানের লইগ্যা মোগো হককুলডির সর্বনাস হরছে। মোরা এইয়ার বিচার চাই।
আরেক কৃষক নিজাম জোমাদ্দার বলেন, মোর দেড় একর জমির ধান নুন পানিতে পুইর‌্যা গ্যাছে। এহন মাইয়া পোলা লইয়া কি খামু। আর কি দিয়া দেনা হোদ করমু। হিই চিন্তায় এহন রাইতে ঘুম অয় না।

অভিযুক্ত মালেক আকন বলেন, আমার চিংড়ি ঘেরে লবন পানি উঠাতে গিয়ে অজান্তে পাশের ফসলি জমিতে লবন পানি ঢুকে ধান পুরে গেছে। এটা আমি ইচ্ছকৃত ভাবে করিনি। বিষয়টি স্থানীয়দের নিয়ে সমাধান করা হবে।

তালতলী উপজেলা কৃষি অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) সিএম রেজাউল করিম বলেন, খোজ নিয়ে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। কৃষি অফিস থেকে কৃষকদের ক্ষতিপুরনের কোন ব্যাবস্থা নেই। তবে মালেক আকনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের নিকট সুপারিশ করা হবে।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কাওসার হোসেন বলেন, এবিষয়ে আমার কাছে স্থানীয় কৃষকরা মালেক আকন নামে এক জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। বিষটি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

%d bloggers like this:

developed by:Md Nasir