Blog Details

বরগুনায় নিজের ঘরের ভিতরেই কবর বানাচ্ছেন স্বামী

বরগুনায় নিজের ঘরের ভিতরেই কবর বানাচ্ছেন স্বামী

লোকবেতার ডেস্ক : স্ত্রীকে ফিরিয়ে আনতে না পেরে নিজের বসত ঘরের ভিতরেই কবর বানাচ্ছেন বরগুনার আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের কদমতলা গ্রামের জাফর গাজী।

শুক্রবার (২২ জুলাই) বরগুনা সদর উপজেলার আয়লা ইউনিয়নের কদমতলা এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন।

স্থানীয়রা জানান, জাফর গাজী ও হাজেরা দম্পতির প্রায় এক যুগের সংসার। তাদের দাম্পত্য জীবনে প্রায়ই কলহ লেগে থাকত। বর্তমানে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে তাদের কলহ নিয়ে সালিশও চলমান রয়েছে।

স্থানীয় গ্রাম পুলিশ সাইফুল জানান, জাফর ও হাজেরা এক মাস ধরে আলাদা থাকেন। তবে স্ত্রী হাজেরাকে বাড়িতে ফেরাতে চেষ্টা করছিলেন জাফর। অবশেষে না ফেরাতে পেরে নিজ ঘরে কবর খোঁড়া শুরু করেন তিনি। খবর পেয়ে তিনি ছুটে গিয়ে কবর খোঁড়া থেকে তাকে বিরত রাখতে বিষয়টি পুলিশকে জানান।

এ বিষয়ে জাফর গাজী জানান, ১৩ বছর আগে ঢাকায় হাজেরার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই হাজেরা তার কথার অবাধ্য ছিলেন। পরে বরগুনায় এসে বসবাস শুরু করেন। তবুও স্ত্রীকে শুধরাতে পারেনি।

তিনি আরও জানান, তাদের কলহের বিষয় নিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা একাধিকবার সালিশ করলেও হাজেরা কোন কিছু মানছেন না। সবশেষ ২২ জুন তার সঙ্গে রাগ করে হাজেরা তার নিজ চায়ের দোকানে বসবাস শুরু করেন। দোকান থেকে তাকে ঘরে ফেরাতে একাধিকবার চেষ্টা করেও তিনি ব্যর্থ হন। তাই হতাশায় নিজের কবর নিজেই খোঁড়া শুরু করেন তিনি।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে জাফরের স্ত্রী হাজেরা অভিযোগ করেন, ১৩ বছর আগে বিয়ের সময় তার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন জাফর। তার আগের স্ত্রীকে তালাক না দিয়েই মিথ্যা তালাকনামা তৈরি করে তা দেখিয়ে তাকে বিয়ে করেছেন তিনি। এসব নিয়ে কলহ শুরু হলে ঢাকা থেকে তারা বরগুনা চলে আসেন।

এদিকে জাফরের সঙ্গে ফের সংসার শুরু করতে কোনোমতেই রাজি নন হাজেরা। কারণ হিসেবে হাজেরা জানান, জাফর সংসারে অমনোযোগী। এজন্য প্রায়ই ঝগড়া হয়। গত ২২ জুন তাকে ঘর থেকে বের করে দেয় জাফর। এরপর থেকে তিনি দোকানের মধ্যে আলাদা থাকা শুরু করেন।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন বলেন, আমি ঢাকায় আছি। এ ঘটনার পর থেকে আশপাশের গ্রামের মানুষ ওই বাড়িতে ভিড় করছেন বলে জেনেছি। মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে জাফর যাতে কোনো প্রকার অঘটন ঘটাতে না পারে সেজন্য স্থানীয়দের দিয়ে তাকে ঘর থেকে কদমতলা বাজারে আনা হয়েছে।

এ ব্যাপারে বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহম্মেদ জানান, স্থানীয়দের মাধ্যমে বিষয়টি শুনেছি। এ ব্যাপারে খোঁজ-খবর নিচ্ছি।

Leave a Reply

%d bloggers like this:

developed by:Md Nasir